Thursday, February 22, 2024
প্রচ্ছদখুলনা বিভাগঝিনাইদহসৌন্দর্য হারাচ্ছে ঝিনাইদহে অবস্থিত এশিয়ার সর্ববৃহৎ বটগাছটি

সৌন্দর্য হারাচ্ছে ঝিনাইদহে অবস্থিত এশিয়ার সর্ববৃহৎ বটগাছটি

Published on

ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার সুইতলা-মল্লিকপুরে অবস্থিত এশিয়ার বর্ববৃহৎ বটগাছ। কিন্তু অযত্নে অবহেলায় আজ ধ্বংসের দারপ্রান্তে অবহেলায় আপন সৌন্দর্য আর ঐতিহ্য হারাতে বসেছে বৃহত্তম এই গাছটি। সংরক্ষণ ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে এশিয়াবাসীর গর্ব এই গাছটি আর কতদিন টিকে থাকবে তা নিয়েও সংশয় অনেকের।

সরেজমিনে দেখা যায়, আনুমানিক ৩’শ ফুট উচ্চতাসম্পন্ন এই বটগাছটির বর্তমান বিস্তৃত এলাকা ১১ একর। বটের ‘ব’ নেমে নেমে পুরো এলাকাটি দৃশ্যত পৃথক গাছে পরিণত হয়েছে। মূলগাছ কোনটি তা আর এখন চেনার উপায় নেই। গাছটির জন্ম কত সালে তার কোন সঠিক ইতিহাস কারো জানা নেই। তবে বয়ঃবৃদ্ধদের মূখে শোনা যায় গাছটির বয়স ৪শ’ বছরের বেশী হবে।

গাছটি দিন দিন বেড়েই চলেছে। যে কারণে পাশের রাস্তা কয়েক বার সরিয়ে নির্মাণ করতে হয়েছে। বাংলা ১৩৬০ সালে এই গাছটিকে কেন্দ্র করে মল্লিকপুর বেথুলীতে প্রথম বাজার বসে। যে বাজার আজ গাছের সঙ্গে অনেক বড় হয়ে উঠেছে। দোকানের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। বর্তমানে ৫৫ থেকে ৬০ টি দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে বাজারটিতে। বাজারের প্রথম ব্যবসায়ী মল্লিকপুরের মুনসুর আলী, মোনতাজ আলী, আঃ হামিদ, বেলায়েত মিয়া, বেথুলী গ্রামের স্বারজিত বিশ্বাস প্রমুখ। উল্লিখিত ব্যক্তিরা প্রথম টোং দোকান বসিয়ে ব্যবসা শুরু করে। এখন সেখানে গড়ে তুলেছেন স্থায়ী পাকা ইমারত ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান।

১৯৮২ সালে বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয় যে, ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ উপজেলার বেথুলী মৌজায় অবস্থিত সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছটি এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহত্তম বটগাছ। তখন থেকে লোকমুখে ছড়িয়ে পড়ে কালীগঞ্জের বটগাছের কথা। এরপর দেশ-বিদেশ থেকে হাজার হাজার দর্শনার্থী গাছটি দেখতে আসা শুরু করেন। গাছটির ইতিহাস সম্পর্কে যতটুকু শোনা যায়, আজ থেকে ৪শ বছর পূর্বে গাছটি ছোট থাকা অবস্থায় গাছের নিচে একটি কুয়া ছিল। কুয়ার পানি ছিল স্বচ্ছ ও বিশুদ্ধ।

কম জনবসতি এলাকাটিতে দুর-দুরান্তে লোক এই কুয়ার পানি পান করার উদ্দ্যেশ্যে নিয়ে যেত। কুয়ার উপরের বটগাছটির ডালপালা প্রচুর হওয়ায় গাছের নিচে গরমের সময় ঠাণ্ডা আর ঠাণ্ডার সময় গরম অনুভূত হত। জনসাধারণের বিশ্বাসে গাছটি পূণ্য স্থানে পরিণত হয়। বিভিন্ন রোগের জন্য আগত লোকজন গাছের গোড়ায় মানত করতে শুরু করে। সাধারণের মাঝে বিশ্বাস জাগতে শুরু করে যে, গাছটির ডাল কাটলে বা ক্ষতি করলে নিজেদের ক্ষতি হতে পারে। তাই গাটিকে সবাই পরিচর্যা করতে শুরু করে। ধীরে ধীরে গাছটির ডালপালা থেকে ‘ব’ নামতে নামতে বৃহত আকার ধারণ করে। কিন্তু মানুষ আজ আর কোন নিয়ম মানে না, ভয়ও পাই না। তাই এলাকার এক শ্রেণীর মানুষ গাছের বড় বড় ডালগুলো নির্বিচারে কেটে নিয়ে যাচ্ছে।

১৯৮২ সালে বিবিসির জরিপে কালীগঞ্জে সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছটি এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ বট গাছ হিসাবে স্বিকৃতি পায়। এরপর থেকেই এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে ও স্থানটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব বিবেচনা করে সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয় সরকার।

সরকারের পাশাপাশি এই ঐতিহাসিক স্থানটিকে রক্ষায় এগিয়ে আসেন স্থানীয়রা। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯০ সালে গাছটির চারপাশ দিয়ে ১১ একর (৩৩) বিঘা জমির উপর দেওয়া হয় সীমানা প্রাচীর। গাছের পাশে প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় একটি রেস্ট হাউজ। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে গাছের জন্য সংরক্ষিত এলাকায় পাকা বেঞ্চ ও গার্ডেন ছাতা সংযোজন করা হয়।

রেস্ট হাউজ নির্মিত হওয়ার পর বটগাছের পাশে ১৬৯ মৌজার ১৬নং দাগে ৩২ শতক জমি মল্লিকপুরে গ্রামের মৃত জহুর আলী বিশ্বাসের স্ত্রী কুন্টি বিবি ২৫/০৪/৯০ ইং তারিখে ঝিনাইদহ জেলা পরিষদের নামে দানপত্র লিখে দেন। সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়াম্যান শওকতুল ইসলাম ঐতিহ্যবাহী স্থানটির সৌন্দর্য বৃদ্ধি ঘটাতে গাছের নীচে বিভিন্ন ফুলের গাছ রোপন করেন। কিন্তু সরকার এসব দেখভালের জন্য কোন লোক নিয়োগ করেনি। দীর্ঘদিন অরক্ষিত থেকে সরকারি টাকায় নির্মিত রেস্ট হাউজটি আজ নেশাখোরদের দখলে চলে গেছে। নেশাখোরেরা রেস্ট হাউজের জানালা দরজা লোহার গ্রীল সবই কেটে নিয়ে গেছে। ফলে রেস্ট হাউজটি এখন পরিত্যক্ত।

এ ছাড়া এলাকার প্রভাবশালী মহল রাতে গাছের বড় বড় ডালপালা পর্যন্ত কেটে নিয়ে যায়। মানুষের নানাবিধ অত্যাচারে সৌন্দর্যবর্ধনকারী এই বটগাছটি আজ তার সৌন্দার্য ও ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। এভাবে চলতে থাকলে এশিয়াবাসীর গর্ব এই বৃহৎ বট গাছটি আর কতদিন তার আপন ঐতিহ্য ও সৌন্দর্য ধরে রাখতে পারবে তা নিয়েই সংশয় প্রকাশ করেন সুইতলা-মল্লিকপুরের বাসিন্দারা।

সর্বশেষ

কুষ্টিয়ায় আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৭

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডার পর সংঘর্ষে জড়িয়ে অন্তত সাতজন...

কুষ্টিয়ায় শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানি, বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে পুলিশে সোপর্দ

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির মামলায় বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর)...

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় একটি শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে।   বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরের দিকে...

পাসপোর্ট সংশোধনে সরকারের নতুন নির্দেশনা

এনআইডির তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট রি-ইস্যুর নির্দেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট...

আরও পড়ুন

ঝিনাইদহে নব দম্পতির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

পরিবারের লোকজন তাদের বিয়ে মেনে নেয়নি বলেই স্বামী-স্ত্রীর আত্মহত্যা! ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কালীচরণপুর ইউনিয়নের হাটবাকুয়া...

মিষ্টি কুমড়া ভর্তি ট্রাকে গাঁজা ও ফেনসিডিল, আটক ২

ঝিনাইদহে মিষ্টি কুমড়া ভর্তি পিকআপ ভ্যান থেকে র‌্যাব ১১ কেজি গাঁজা ও ১১৭ বোতল...

করোনাভাইরাস : ঝিনাইদহে বৃদ্ধের মৃত্যু

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আব্দুর রহমান (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।...