Friday, April 12, 2024
প্রচ্ছদজানা-অজানাদমকল বাহিনী: ফায়ার ব্রিগেড বা সার্ভিসের নাম বাংলায় 'দমকল' হল যেভাবে

দমকল বাহিনী: ফায়ার ব্রিগেড বা সার্ভিসের নাম বাংলায় ‘দমকল’ হল যেভাবে

Published on

আগুন লাগলেই যাদের কথা মনে পড়ে, তারা হলেন অগ্নিনির্বাপণ বাহিনী, ইংরেজিতে ফায়ার ব্রিগেড অথবা ফায়ার সার্ভিস।

কিন্তু বাংলা ভাষায় এর পরিচিতি দমকল হিসেবে। অর্থাৎ বাংলা ভাষাভাষী মানুষ ওইসব নামগুলো ব্যবহার না করে বলে থাকেন দমকল।

আগুন নেভানোর কাজ অগ্নিনির্বাপণ বাহিনী করবে, সেটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দমকল নামটা কোথা থেকে এলো?

ইতিহাস ঘাঁটতে গিয়ে প্রায় দেড়শো বছর পিছিয়ে যেতে হল।

উনবিংশ শতাব্দীর প্রসিদ্ধ সংগীতকার রূপচাঁদ পক্ষী, যিনি সেই সময়ে নানা ধরণের ধর্মসঙ্গীত, টপ্পার সঙ্গে সমসাময়িক বিষয় নিয়েও রসিয়ে গান লিখতেন।

তিনি লিখেছিলেন:

“অগ্নিদেব হলে প্রবল, নির্বাণ করে দমকল,

গোরাদের চেহারা দেখে ভয়ে পালায় বৈশ্বানর,

পাল্লে জল যোগাতে, সাধ্য মতে

সাধ্য কী যে পোড়ে ঘর।

(মেসিনেতে দিলে দম, করে ঝম ঝম

তেজে বেরোয় ওয়াটার)

সকল প্রস্তুত কলিকাতাতে,

এমন নাই ভূ-ভারতে”

শিল্প ঐতিহাসিক ও কলা সমালোচক দেবদত্ত গুপ্ত বলছিলেন, রূপচাঁদ পক্ষীর ওই গানেই লুকিয়ে রয়েছে দমকল নামের ইতিহাস।

তিনি বলেন, “যে মেসিনে দম দেওয়ার কথা লিখেছিলেন তিনি, সেগুলো আসলে ফায়ার ব্রিগেডকে সতর্ক করার একটা যন্ত্র। বিভিন্ন রাস্তায় বসানো থাকত লাল রঙের লোহার বাক্স।”

“ভেতরে, কাঁচে ঢাকা একটা খোপে থাকত হাতল ঘুরিয়ে দম দেওয়ার একটা যন্ত্র। ওই হাতল ঘোরালেই খবর চলে যেত কাছের দমকল দপ্তরে।”

অধ্যাপক গুপ্তের কথায়, আগুন লাগলে সতর্ক করার এই ব্যবস্থার আগেও আরেকটা ব্যবস্থা করেছিলো ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী। সবে গড়ে ওঠা কলকাতা শহরের বেশীরভাগ বাড়িই ছিল খড়ের চাল দেওয়া।

তিনি বলেন, মাঝে মাঝেই আগুন লেগে যেত। কলকাতা পুলিশই তখন আগুন নেভানোর কাজ করত। কিন্তু কোথায় আগুন লাগছে, সেই খবর পেয়ে সেখানে পৌঁছতে সময় লেগে যেত।

তাই উঁচু বাঁশের মাচায় একজন করে লোক বসিয়ে রাখা হত, যার দায়িত্বই ছিল চারদিকে নজর রাখা যে কোথাও থেকে ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে কী না! ধোঁয়া দেখলেই সেই লোক শিঙা ফুঁকে সতর্ক করত – বলছিলেন তিনি।

ওই দম দেওয়া যন্ত্র, যার হাতল ঘোরালেই মাটির নীচে পাতা তারের মাধ্যমে ফায়ার ব্রিগেডের কাছে খবর চলে যেত, সেই থেকেই বাহিনীর নাম দমকল – দম দেওয়া কল দিয়ে ডাকা হয় যে বাহিনীকে, তা-ই দমকল।

এক ব্রিটিশ অফিসার, ক্যাপ্টেন বার্নাড অ্যান্সন ওয়েস্টব্রুক ওই যন্ত্রটা তৈরী করিয়েছিলেন।

সেটাই সম্ভবত ভারতে প্রথম ফায়ার অ্যালার্ম।

পশ্চিমবঙ্গ ফায়ার অ্যান্ড এমারজেন্সি সার্ভিসের অবসরপ্রাপ্ত মহাপরিচালক গোপাল ভট্টাচার্য অবশ্য বলছিলেন যে ওই দম দেওয়া কল থেকেই যে শুধু বাহিনীর নাম দমকল হয়েছে, তা নয়।

তিনি বলেন, “ওটা একটা কারণ। আরও একটা যন্ত্র ছিল, যেটাতে দম দিতে হত। সেটা হল ফায়ার ব্রিগেডের গাড়িতে যে জলের পাম্পগুলো থাকত, সেগুলোও চালাতে হত হাতল ঘুরিয়ে – অর্থাৎ দম দিয়ে।”

“এই দুটো দম দেওয়া যন্ত্রের ফলেই ফায়ার ব্রিগেডের বাংলা নাম হয়ে গেল দমকল। আর এটা শুধু কলকাতায় নয়, ব্রিটিশরা ঢাকাতেও একই যন্ত্র বসিয়েছিল,” বলছিলেন মি. ভট্টাচার্য।

সর্বশেষ

কুষ্টিয়ায় আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৭

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডার পর সংঘর্ষে জড়িয়ে অন্তত সাতজন...

কুষ্টিয়ায় শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানি, বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে পুলিশে সোপর্দ

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির মামলায় বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর)...

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় একটি শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে।   বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরের দিকে...

পাসপোর্ট সংশোধনে সরকারের নতুন নির্দেশনা

এনআইডির তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট রি-ইস্যুর নির্দেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট...

আরও পড়ুন

ঢাকা ট্রেনের সময়সূচি ও ভাড়া ২০২৪

ঢাকা টু বিভিন্ন জেলার ট্রেনের ভাড়া ও সময়সূচী। ট্রেনভেদে টিকেট এর মূল্য ভিন্ন হতে...

কিংবদন্তি অভিনেতা ‘সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়’, কুষ্টিয়ার কয়ায় শেকড়

উপমহাদেশের কিংবদন্তি অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যাধ্যায়ের পূর্বপুরুষের বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া গ্রামে। বিখ্যাত চ্যাটার্জি...

আবারও শীর্ষে ‘বিল গেটস’, নিঃস্ব হতে সময় লাগবে ২১৮ বছরের বেশি!

বাবা-মা চেয়েছিলেন বিল গেটস আইনজীবী হোক। কিন্তু বিল গেটস সারা দিন পড়ে থাকতেন কম্পিউটার...