Monday, June 24, 2024
প্রচ্ছদখুলনা বিভাগঝিনাইদহঝিনাইদহ নারীদের ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প

ঝিনাইদহ নারীদের ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প

Published on

কেউ কাপড় কাটছেন, কেউ করছেন সেলাই,একেবারে নতুন সদস্যরা শিখছেন নকশী ফোঁড়। আবার কেউ বাড়িতে তৈরী করা নানা ডিজাইনের নকশী কাঁথা, নকশায় তৈরী থ্রিপিচ, নানা রঙ-বেরঙের পুথি বসিয়ে তৈরীকৃত সো-পিচ পরিচালকের নিকট জমা দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ নতুন কাজের অর্ডার নিয়ে ফিরছেন বাড়িতে। আর এগুলো সব সামলিয়ে নিচ্ছেন পরিচালক একাই। তাকে সাহায্য করছেন কাটিং মাষ্টার। এভাবে ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের পৌর মহিলা সমবায় সমিতির প্রায় ২ শতাধিক অসহায় নারী সরাসরি স্বকর্মসংস্থান সৃষ্টিতে কাজ করছেন। মাত্র ৩ বছর আগে গঠিত এ সমিতির দৃশ্যমান কর্মকান্ড ইতোমধ্যে সকলের নজর কাড়তে সক্ষম হয়েছে। সমিতির সদস্যদের আশা খুব শীঘ্রই এ সংগঠনের প্রত্যেকে অর্জিত দক্ষতা কাজে লাগিয়েই হতে পারবেন স্বাবলম্বী।

সমিতির সদস্যভুক্ত একাধিক অসহায় নারী জানান,তাদের সকলেরই অভাবের টানাটানির সংসার। অনেকে আছেন নানাবিধ কারনে নিজেই সংসারের একমাত্র উপার্জনকারী। আবার অনেকের স্বামী সংসার থাকলেও সাংসারিক কাজ শেষে বাড়িতে অলস সময় কাটিয়ে থাকেন। বর্তমানে এ সমিতির সদস্য হয়ে নকশী কাঁথা সেলাই,দর্জির কাজ শেখা ছাড়াও কুটির ও হস্তশিল্পের অনেক কাজ শিখতে পারছেন। আবার কেউ কেউ অর্ডার মত থ্রিপিচ, পাঞ্জাবী, নকশী কাঁথায় নানা ডিজাইনের কাজ করে সমিতিতে জমা দিয়ে ন্যায্য মজুরী পাচ্ছেন। এভাবে উপার্জিত এ পয়সা দিয়েই চলছে তাদের সংসার।

তারা আরো জানান, সাধারন গোছের একটি নকশী কাঁথা সেলাই করে কমপক্ষে সাড়ে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকায় বিক্রি করতে পারেন। সৌখিন এ কাঁথা গুলো পরিবারে ব্যবহারের জন্য আবার কখনও আপনজনকে উপহার দিতে স্থানীয়রা আগে থেকে অর্ডারের মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে তৈরী করছেন। তাছাড়াও তাদের তৈরীকৃত সৌখিন জিনিসপত্র ঢাকাসহ বাইরের বিভিন্ন শহর থেকে ক্রেতারা এসে নগদ টাকায় কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। বিনিময়ে সমিতিটিতে অল্প কিছু টাকা জমা দিয়ে বাকিটা কাজটিতে সংশ্লিষ্ঠ সদস্য পেয়ে যাচ্ছেন। তারা বলেন, তাদের মধ্যে অনেকে আছেন আগের থেকে নকশী কাপড় সেলাইয়ের কাজ করতেন। কিন্ত তৈরীকৃত কাপড় বিক্রি করতে পারতেন না। একটি নকশী করা পোশাক বা কাঁথা সেলাই করতে অনেক সময় লাগে। আগে সঠিক যোগাযোগের অভাবে এতো কষ্টের কাঁথা বিক্রি করতে সময় লেগে যেতো। কিন্ত এথন সবাই মিলে কাজ করার কারনে বাইরের অর্ডার বেশি পাচ্ছেন। আবার অল্প সময়ের মধ্যে সেটা বিক্রিরও নিশ্চয়তা থাকছে। তাদের নকশী কাজে অভিজ্ঞ মাষ্টার ডিজাইন বুঝিয়ে দেন যে কারনে কাজগুলো হয় নিখুঁত ও আকর্ষনীয়। ফলে নিজ এলাকার পাশাপাশি বাইরের ক্রেতারাও এগুলো অধিক আগ্রহে কিনছেন। ফলে কাজ বেশি হওয়ায় এখন তাদের সারাবছরের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে।

মিতা বিশ্বাস নামের সমিতির এক সদস্য জানান, তিনি অনেক দিন ধরে নকশী কাঁথাসহ নানা নকশা করা পোশাক তৈরী করেন। সমিতির সদস্য হওয়ার পর সারাবছরই প্রায় কাজ থাকে। তিনি বলেন, আগে নিজে অর্ডার নিয়ে বাড়িতে কাজ করতেন। কিন্ত তৈরীকৃত পোশাক বিক্রি করতে অনেক সময় লেগে যেতো। এখন তা নেই। তিনি আরও বলেন, ব্যক্তিগত অর্ডার ছাড়াও বর্তমানে সমিতির পরিচালকেরা দর কষাকষির মাধমে কাজের অর্ডার নিয়ে কাটিং মাষ্টার নকশার ধরন বুঝিয়ে দেন। সে মোতাবেক বাড়িতে বসে কাজ শেষ করে সমিতিতে জমা দিলে মুজুরির টাকা পেয়ে যান। তিনি জানান, সমিতির পক্ষ থেকে জিনিসপত্রের অর্ডার ধরে পরে তার মত অনেকের মাঝে ভাগ করে দেয়া হয়।

আলোমতি দাস নামের অন্য এক সদস্য জানান, তার স্বামীর সংসার সবই আছে। স্বামী কাঠমিস্ত্রির কাজ করেন। তবে সব সময় তার কাজ থাকে না। ফলে অভাবের সংসার তার। নিজে বাড়িতে বসে না থেকে কাজ করে পয়সা রোজগারের মাধ্যমে সংসারে সাহায্য করছেন। তার দুটি সন্তান লেখাপড়া করে। তাদের লেখাপড়ার খরচ যোগানোর ক্ষেত্রেও বর্তমানে ভূমিকা রাখতে পারছেন।

সমিতির পরিচালক মিনা ভট্রাচার্য্য জানান, এখানে তার নিজের কোন অর্জন নেই। সবকিছুই সদস্যরাই করে থাকেন। নিজে একজন মহিলা মাষ্টার দিয়ে সপ্তাহে একদিন বিভিন্ন হাতের কাজের প্রশিক্ষন দিয়ে যাচ্ছেন। আবার অনেকে আছেন সুন্দর সুন্দর নকশী কাজে পারদর্শী। তাদের তৈরীকৃত জিনিসগুলো বাইরের ক্রেতাদের নিকট ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করে থাকেন। কোন ক্রেডিট প্রগ্রাম নেই। প্রতি সপ্তাহে তাদের নিকট থেকে মাত্র ১০ টাকা করে নেয়া হয়। এ দিয়ে চলে সমিতির অন্যান্য ব্যয়। প্রশিক্ষকের বেতনও হয় এখান থেকে।

এ সমিতির প্রধান উপদেষ্টা মোচিক শ্রমিক সমবায় সমিতির সাধারন সম্পাদক গোলাম রসুল জানান, মহিলাদের নিয়ে গঠিত এ সমিতির সদস্যরা যারা আছেন তারা বেশির ভাগই হতদরিদ্র। তাদেরকে সংগঠিত করে কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, সবকিছুই তারা করছেন তিনি শুধু পথ দেখিযে দিচ্ছেন মাত্র। এ সমিতিতে কোন ক্রেডিট প্রগাম নেই। কিন্ত তাদেরকে এক হিসেবে বিনা টাকায় সেলাইসহ হস্তশিল্পের বিভিন্ন কাজের প্রশিক্ষন দিচ্ছেন। যা অসহায় গরীব মহিলাদের জন্য একটা বড় কিছু। তিনি বলেন,যে কোন জাতীয় দিবস সমিতির সদস্যদের নিয়ে তারা পালন করা ছাড়াও জন সচেতনতামূলক বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে থাকেন। এই শ্রমিক নেতা আরও বলেন. সমিতির সদস্যরা যেভাবে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছেন মনে হচ্ছে পরিশ্রমই একদিন তাদের সকলের সাফল্যের দ্বার খুলে যাবে। সকলেই হতে পারবেন স্বাবলম্বী।

সর্বশেষ

কুষ্টিয়ায় আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৭

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডার পর সংঘর্ষে জড়িয়ে অন্তত সাতজন...

কুষ্টিয়ায় শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানি, বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে পুলিশে সোপর্দ

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির মামলায় বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর)...

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় একটি শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে।   বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরের দিকে...

পাসপোর্ট সংশোধনে সরকারের নতুন নির্দেশনা

এনআইডির তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট রি-ইস্যুর নির্দেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট...

আরও পড়ুন

ঝিনাইদহে নব দম্পতির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

পরিবারের লোকজন তাদের বিয়ে মেনে নেয়নি বলেই স্বামী-স্ত্রীর আত্মহত্যা! ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কালীচরণপুর ইউনিয়নের হাটবাকুয়া...

মিষ্টি কুমড়া ভর্তি ট্রাকে গাঁজা ও ফেনসিডিল, আটক ২

ঝিনাইদহে মিষ্টি কুমড়া ভর্তি পিকআপ ভ্যান থেকে র‌্যাব ১১ কেজি গাঁজা ও ১১৭ বোতল...

করোনাভাইরাস : ঝিনাইদহে বৃদ্ধের মৃত্যু

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আব্দুর রহমান (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।...