Sunday, June 16, 2024
প্রচ্ছদকুষ্টিয়াকুষ্টিয়া সদরকুষ্টিয়ায় গুমের শিকার ব্যক্তিদের স্মরণে আর্ন্তজাতিক দিবস পালন

কুষ্টিয়ায় গুমের শিকার ব্যক্তিদের স্মরণে আর্ন্তজাতিক দিবস পালন

Published on

গুমের শিকার ব্যক্তিদের স্মরণে জাতিসংঘ ঘোষিত আর্ন্তজাতিক দিবস পালিত হয়েছে। বৃহষ্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় মানবাধিকার সংগঠন অধিকার এর উদ্যেগে সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর বাজারস্থ প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে এই দিবস পালনে মানবাধিকার কর্মী হাসান আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আল্চোনা সভায় সংহতি বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহবুব আলী, দি ওল্ড কুষ্টিয়া হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক গোলাম আজম, নারীনেত্রী ইউপি সদস্য সিমা খাতুন প্রমুখ।

এছাড়া সমাজের বিভিন্ন শ্রেনীপেশার নারী পুরুষ ও ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজনরা এই সংহতি সভায় অংশ গ্রহন করেন। এসময় বক্তারা ফিরে না আসা গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, ২০০৬ সালের ২০ ডিসেম্বর ‘গুম হওয়া থেকে সমস্ত ব্যক্তির সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক সনদ’টি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে গৃহীত হয়। গুম হওয়া থেকে সমস্ত ব্যক্তির সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক কনভেনশন-এমন একটি চুক্তি যা অনুস্বাক্ষর করার ক্ষেত্রে প্রতিটি রাষ্ট্রের আইনগত বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

গুম বা এনফোর্সড ডিস্অ্যাপিয়ারেন্স একটি মানবতাবিরোধী অপরাধ, যা আন্তর্জাতিক অপরাধ হিসেবে স্বীকৃত। গুম হওয়া থেকে সমস্ত ব্যক্তির সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক সনদের অনুচ্ছেদ-২ এ এটিকে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। এই সংজ্ঞানুযায়ী ‘গুম করা’ বলতে বোঝায় ‘রাষ্ট্রীয় অনুমোদন, সাহায্য অথবা মৌনসম্মতির মাধ্যমে কার্যত রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধি বা ব্যক্তি বা গোষ্ঠী কর্তৃক সংঘটিত গ্রেফতার, বিনা বিচারে আটক, অপহরণ অথবা অন্য যে কোন উপায়ে স্বাধীনতা হরণকে; যা কিনা সংঘঠিত হয় স্বাধীনতা হরণের ঘটনা অস্বীকার অথবা গুম করা ব্যক্তির নিয়তি এবং অবস্থানের তথ্য গোপন করে তাঁকে আইনী রক্ষাকবচের বাইরে রাখার ঘটনাগুলোর মাধ্যমে সংঘঠিত করে। ‘গুম’ ব্যক্তির বাক স্বাধীনতা, চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা, ধর্ম পালনের স্বাধীনতা এবং সংগঠনের স্বাধীনতাকে খর্ব করে। গুম জনিত অপরাধকে ধারাবাহিক অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, কারণ আটক বা অপহরণের পর এটি দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকে।

২০০৯ সাল থেকে দেশে গুম হওয়ার ঘটনা ব্যাপকভাবে শুরু হয়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর বিতর্কিত নির্বাচনের আগে ও পরে অনেক গুমের ঘটনা ঘটে এবং বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই বিরোধী রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা এর শিকার হন, যা এখনও অব্যাহত রয়েছে। মানবাধিকার সংগঠন অধিকার এর সংগৃহীত তথ্য অনুযায়ী ২০০৯ সালের ১ লা জানুয়ারী থেকে ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই পর্যন্ত ৪৩৫ জন গুমের শিকার হয়েছেন বলে ভুক্তভোগী পরিবার গুলির পক্ষ থেকে অভিযোগ রয়েছে।

গুম মৌলিক মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। এটি রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের একটি হাতিয়ার। শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখা এবং জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষার নামে গুম জনিত অপরাধ মূলতঃ তাঁদের বিরুদ্ধেই প্রয়োগ করা হয়; যাঁদেরকে রাষ্ট্র শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করেছে। গুম হওয়া ব্যক্তিরা নির্যাতনেরও শিকার হন এবং অনেকেই বছরের পর বছর ধরে নিখোঁজ থাকায় তাঁদের হত্যা করা হয়েছে কি-না এই বিষয়ে পরিবারের সদস্যরা সন্দীহান থাকে। গুম হয়ে যাওয়া ব্যক্তিদের স্ত্রী-সন্তানরা আর্থিক ও সামাজিকভাবে তাঁদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হন। এমনকি পরিবারগুলো বিভিন্নরকম হুমকি এবং হয়রানীর সম্মুখিন হন।

সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত গুমের বিষয়টি অস্বীকার করা হচ্ছে। এমনকি বলা হচ্ছে যে, তাঁরা নিজেরাই আত্মগোপন করে আছেন। সরকারের পক্ষ থেকে গুমের বিষয়টি অস্বীকার করা হলেও বিভিন্ন তদন্ত প্রতিবেদন থেকে প্রমানিত হয়েছে যে, গুমের ঘটনাগুলো অব্যাহতভাবে ঘটছে। গুম বন্ধের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে পদক্ষেপ নিতে ইতিমধ্যেই আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘের ওয়ার্কিং গ্রুপ অন এনফোর্সড অর ইনভলান্টারি ডিস্অ্যাপেয়ারেন্সেস।

মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০লাখ শহীদের আত্মদান ও ২লাখ মা-বোনে সম্ভ্রমহানির মধ্যদিয়ে অর্জিত স্বাধীনতার পর বিপ্লবী বাম রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে বহু তরুণ-যুবককে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা ধরে নিয়ে গিয়ে হত্যা বা গুম করে। পরবর্তীতে রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে ক্ষমতায় আসা সরকারগুলোর অধীনেও নিপীড়নের এই ধারা অব্যাহত থাকে। কিন্তু ’৯০ এর গণঅভ্যুত্থানের পর বাংলাদেশের জনগণ আশা করেছিল যে, জনগনের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত সরকারগুলো এই অপরাধের সমাপ্তি ঘটাবে এবং দোষী ব্যক্তিদের বিচারের আওতায় আনার জন্য কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। কিন্তু বাস্তব অবস্থা হয়েছে ঠিক তার বিপরীত। তাই সত্যিকারের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবং সব ধরনের অন্যায়-অবিচারের প্রতিকার করতে বাংলাদেশের জনগণকে সংগঠিত হওয়া এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো ছাড়া আর কোন বিকল্প নাই।

সর্বশেষ

কুষ্টিয়ায় আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৭

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডার পর সংঘর্ষে জড়িয়ে অন্তত সাতজন...

কুষ্টিয়ায় শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানি, বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে পুলিশে সোপর্দ

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির মামলায় বরখাস্ত প্রধান শিক্ষককে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর)...

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় একটি শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে।   বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরের দিকে...

পাসপোর্ট সংশোধনে সরকারের নতুন নির্দেশনা

এনআইডির তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট রি-ইস্যুর নির্দেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পাসপোর্ট...

আরও পড়ুন

কুষ্টিয়ায় আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের সংঘর্ষে আহত ৭

কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডার পর সংঘর্ষে জড়িয়ে অন্তত সাতজন...

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

কুষ্টিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় একটি শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু হয়েছে।   বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরের দিকে...

কুষ্টিয়ায় স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে হোটেলে, কলেজছাত্রীর মৃত্যুর পর যুবক আটক

কুষ্টিয়ায় একটি আবাসিক হোটেলে শয্যা বিশ্বাস (১৮) নামে এক কলেজছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায়...